Home / খেলা / ক্রিকেট বোর্ডের কেন্দ্রিয় চুক্তিতেই নেই গেইল

ক্রিকেট বোর্ডের কেন্দ্রিয় চুক্তিতেই নেই গেইল

ক্রীড়া ডেস্ক  :

বোর্ডের সঙ্গে বাদানুবাদের সূত্র ধরেই ক্রিস গেইলের আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ারে আপাতত যতি পড়েছে। ওয়েস্ট ইন্ডিজ জাতীয় দল তো বটেই, ক্যারিবীয়ান ক্রিকেট বোর্ডের কেন্দ্রিয় চুক্তিতেই নেই গেইল। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটারের পোষাক খুলে গেইল তাই হয়ে গেছেন ফ্রিল্যান্স ক্রিকেটার। ঘুরে বেড়াচ্ছেন ফ্যাঞ্চাইজি ভিত্তিক বিভিন্ন দেশের টি-টুয়েন্টি ক্রিকেট লিগে খেলে। এখন যেমন খেলছেন পাকিস্তান সুপার লিগে (পিএসএল)।

তা এভাবে বিভিন্ন দেশের টি-টুয়েন্টি লিগে খেলেই কাটিয়ে দেবেন ক্রিকেটার ক্যারিয়ারের বাকিটা পথ? নাকি আবার ফিরতে চান ওয়েস্ট ইন্ডিজ জাতীয় দলে, খেলতে চান টেস্ট ক্রিকেট? পাকিস্তান ভিত্তিক ক্রিকেট সম্পর্কিত ওয়েবসাইট পাকপ্যাশন ডট কমকে দেওয়া সাক্ষাতকারে ৩৭ বছর বয়সী গেইল জানিয়েছেন মনের ভেতর পুষে রাখা ছোট্ট একটা স্বপ্নের কথা। বলেছেন খুব বেশি না হোক, ওয়েস্ট ইন্ডিজের হয়ে অন্তত একটা টেস্ট খেলতে চান। যাতে সেই ‘ফাইনাল’ টেস্টটি খেলে বিদায় নিতে পারেন মাঠ থেকে!

২০০০ সালে টেস্ট অভিষেকের পর ২০১৪ পর্যন্ত ১০৩টি টেস্ট খেলেছেন ক্যারিবীয় এই ব্যাটিং দানব। ৪২.১৮ গড়ে ৭২১৪ রান করা গেইল গড়েছেন একাধিক রেকর্ড। টেস্ট ক্রিকেটের ইতিহাসে যে ৪ জন ক্রিকেটার দুটি করে ট্রিপল সেঞ্চুরির কীর্তি গড়েছেন, গেইল তাদের একজন। কিন্তু নিয়তির কী পরিহাস, সেই গেইলকেই কুড়ে কুড়ে খাচ্ছে মাঠ থেকে বিদায় নেওয়ার আকুতি। ‘আমি অবশ্যই ফাইনাল টেস্ট ম্যাচ খেলতে চাইh। তাহলে সঠিকপথে বিদায় জানানোর সুযোগ পাব’-পাকপ্যাশন ডট কমকে বলেছেন গেইল।

কিন্তু এই স্বপ্ন পূরণ করতে হলে সর্বশেষ ২০১৪ সালে টেস্ট খেলা গেইলকে তো সবার আগে নির্বাচকদের নজর কাড়তে হবে। উইন্ডিজের সাবেক বাঁহাতি ওপেনার বলেছেন, ‘এই বছরের বাকিটা সময় আমি ফ্যাঞ্চাইজি ক্রিকেট খেলে যাব। এই সময়ের মধ্যে যদি টেস্ট ক্রিকেট খেলার দুয়ারটা খুলে যায়, তখন আমি টেস্ট খেলার জন্য নিজেকে প্রস্তুত করব।’ টেস্ট খেলার সুযোগ পেয়ে যদি ভালো করতে পারেন, তখন চাইলে ক্যারিয়ারটাকে টেনে নিয়ে যাওয়ার সুযোগও থাকবে।

আবার টেস্ট খেলার স্বপ্ন পূরণ হোক না হোক, গেইল ক্রিকেটটা খেলে যেতে চান আরও কয়েক বছর। ক্যারিয়ারটা লম্বা করার অনুপ্রেরণাটা তিনি পাচ্ছেন পাকিস্তান দলের দুই সিনিয়র সদস্য মিসবাহ-উল-হক ও ইউনিস খানকে দেখে। মিসবাহ ৪৩ ছুঁইছুঁই করছেন। ইউনিসও ৩৯ পেরিয়ে ৪০-এ পা দিয়েছেন। এই বয়সেও দুজনেই খেলে যাচ্ছেন ক্রিকেট। গেইল বলেছেন, শুধু তার কাছেই নয়, মিসবাহ এবং ইউনিস বিশ্বের সব তরুণ ক্রিকেটারদের জন্যই অনুপ্রেরণা।

এসএমএইচ //১৬,ফেব্রুয়ারি  ২০১৭

x

Check Also

আরো আট নারী ও শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগ

সাভারের আশুলিয়ায় বন্ধুদের সঙ্গে বেড়াতে গিয়ে স্থানীয় একটি কিশোর গ্যাংয়ের সদস্যরা দুই ...