Home / জেলা সংবাদ / চট্টগ্রামে যুবক হত্যার দায়ে মৃত্যুদণ্ড

চট্টগ্রামে যুবক হত্যার দায়ে মৃত্যুদণ্ড

চট্টগ্রাম, ১ জুন (অনলাইনবার্তা): ১১ বছর আগে তাজউদ্দিন বাবু (২০) নামে এক যুবককে নির্মমভাবে খুনের দায়ে সৌমিত্র বড়ুয়া বাবু নামে একজনকে মৃত্যুদণ্ড দিয়েছেন চট্টগ্রামের একটি আদালত।  একই রায়ে আদালত অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় নাজিম উদ্দিন ওরফে সুজনকে বেকসুর খালাস দিয়েছেন।

বুধবার (০১ জুন) চট্টগ্রামের চতুর্থ মহানগর দায়রা জজ নূরুল ইসলাম এ রায় দিয়েছেন।

দণ্ডিত সৌমিত্র বড়ুয়া বাবু বর্তমানে হাজতে আছে।  খালাস পাওয়া নাজিম উদ্দিন ঘটনার পর থেকেই পলাতক আছে।

রাষ্ট্রপক্ষে চট্টগ্রামের অতিরিক্ত মহানগর পিপি অ্যাডভোকেট নোমান চৌধুরী বলেন, দণ্ডবিধির ৩০২/৩৪ ধারায় আসামি সৌমিত্র বড়ুয়ার বিরুদ্ধে অভিযোগ আমরা সন্দেহাতীতভাবে প্রমাণ করতে সক্ষম হয়েছি।  এজন্য আদালত তাকে মৃত্যুদণ্ড দিয়েছেন।  অন্য আসামির বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণ করা যায়নি।

নগরীর সদরঘাট এলাকার বাসিন্দা তাজউদ্দিন বাবু রিয়াজউদ্দিন বাজারের তামাকমুণ্ডি লেইনে ইকবাল স্টোর নামে একটি দোকানে চাকরি করতেন।  সৌমিত্র বড়ুয়া ও নাজিম উদ্দিন তার পূর্বপরিচিত ছিলেন।

অতিরিক্ত মহানগর পিপি অ্যাডভোকেট নোমান চৌধুরী  জানান, তাজউদ্দিন বাবুর ছোট বোন সৌমিত্রের সঙ্গে প্রেমের সম্পর্কে জড়িয়ে পড়ে।  এতে বাধা হয়ে দাঁড়ায় তাজউদ্দিন বাবু।  ক্ষুব্ধ হয়ে সৌমিত্র ও নাজিম তাজউদ্দিনকে হত্যার পরিকল্পনা করে।

২০০৫ সালের ২৭ মার্চ সকাল সাড়ে ৯টার দিকে তাজউদ্দিনকে চাকুরি দেয়ার কথা বলে সৌমিত্র ও নাজিম সদরঘাটে একটি বাড়িতে ডেকে নিয়ে যায়।  এরপর তার মাথায় লোহার রড দিয়ে আঘাত করা হয়।  এরপর ধারালো একটি বস্তু দিয়ে সৌমিত্র তাজউদ্দিনের গলায় জখম করে।  এরপরও বিকেল ৩টা পর্যন্ত তার মৃত্যু না হওয়ায় সৌমিত্র তার মুখের ভেতর গামছা ঢুকিয়ে দেয় এবং নাজিম মুখের উপর বালিশ চেপে ধরে।  কয়েক মিনিটের মধ্যেই তাজউদ্দিন মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েন।  এরপর তার লাশ বস্তায় ভরে অভয়মিত্র ঘাটে কর্ণফুলী নদীতে ফেলে দেয়া হয়।

x

Check Also

 রাবির ৯ শিক্ষকের থানায় জিডি, সন্ত্রাসী হামলার আশঙ্কা

সন্ত্রাসী হামলার আশঙ্কায় উদ্বিগ্ন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) ৯ শিক্ষক। এ কারণে রবিবার ...