Home / অর্থ-বাণিজ্য / চুয়েট, হালদা-রাউজানে যাচ্ছে রেলপথ

চুয়েট, হালদা-রাউজানে যাচ্ছে রেলপথ

চট্টগ্রাম, ২২ মে (অনলাইনবার্তা): চট্টগ্রাম মহানগরীর জানালীহাট স্টেশন থেকে চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (চুয়েট), হালদা ও রাউজান পর্যন্ত রেলপথ নির্মাণের সিদ্ধান্ত নিয়েছে মন্ত্রণালয়। ১৭ দশমিক ৫৫ কিলোমিটার নতুন ডুয়েলগেজ রেলপথ নির্মাণ করে এ তিনটি জায়গা ছাড়াও আইটি ভিলেজ ও পিংক সিটি এলাকাকে সংযুক্ত করা হবে।

রেলপথ মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, জানালীহাট স্টেশন থেকে চুয়েট ও আইটি ভিলেজ পর্যন্ত ডুয়েলগেজ রেললাইন নির্মাণ’ প্রস্তাবিত প্রকল্পের আওতায় এ উদ্যোগ। প্রকল্পের মোট ব্যয় নির্ধারণ করা হয়েছে ১ হাজার ৭শ ৮৪ কোটি ৫০ লাখ টাকা। ২০১৬ থেকে ২০২০ মেয়াদে প্রকল্পটি বাস্তবায়নের পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে।

প্রকল্পের আওতায় ১৩৯ দশমিক ৮৬ একর ভূমি অধিগ্রহণ, পুনর্বাসন কাজ, ট্র্যাক ওয়ার্ক, ব্রিজ নির্মাণ, সিগন্যালিং ও টেলিকমিউনিকেশন ওয়ার্ক, অন্য সিভিল ওয়ার্ক, পরামর্শ সেবা ও এমব্যাংকমেন্ট কাজ সম্পন্ন হয়েছে।

ইতোমধ্যে প্রকল্পের প্রস্তাবনা পাঠানো হয়েছে পরিকল্পনা কমিশনের ভৌত অবকাঠামো বিভাগে। এ বিষয়ে সহকারী প্রধান মুহাম্মদ মিজানুর রহমান  বলেন, প্রকল্পের প্রস্তাবনা রেলপথ মন্ত্রণালয় আমাদের কাছে পাঠিয়েছে। আমরা প্রকল্পের ডিপিপি (উন্নয়ন প্রকল্প প্রস্তাবনা) সার্বিক বিষয় যাচাই-বাছাই করে দেখছি। এর পরে পরিকল্পনা কমিশনে সভার পরে প্রকল্পের বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

নানা কারণে প্রকল্পটি গুরুত্ব সহকারে নিচ্ছে রেলপথ মন্ত্রণালয়। হালদা বাংলাদেশের দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলের একটি নদী। পার্বত্য চট্টগ্রামের বাটনাতলীপাহাড় থেকে উৎপন্ন হয়ে এটি ফটিকছড়ির মধ্য দিয়ে চট্টগ্রাম জেলায় প্রবেশ করেছে। প্রথমে দক্ষিণ-পশ্চিমে ও পরে দক্ষিণে প্রবাহিত হয়ে ফটিকছড়ির বিবিরহাট, নাজিরহাট, সাত্তারঘাট ও অন্যান্য অংশ, হাটহাজারী, রাউজান এবং চট্টগ্রাম শহরের কোতোয়ালি থানার মধ্য দিয়ে প্রবাহিত হয়েছে। প্রকল্পের আওতায় এ নদীতে ৫০০ মিটার সেতুও নির্মাণ করা হবে।

প্রতিবছর হালদা নদীতে একটি বিশেষ মুহূর্তে ও বিশেষ পরিবেশে রুই, কাতলা, মৃগেল, কালিবাউস ও কার্প জাতীয় মাতৃমাছ প্রচুর পরিমাণ ডিম ছাড়ে। ডিম ছাড়ার বিশেষ সময়কে বলা হয় তিথি। স্থানীয় জেলেরা ডিম ছাড়ার তিথির আগেই নদীতে অবস্থান নেন এবং ডিম সংগ্রহ করেন। ডিম সংগ্রহ করে তারা বিভিন্ন বাণিজ্যিক হ্যাচারিতে উচ্চমূল্যে বিক্রি করেন। রেলপথ নির্মাণ হলে মৎস্যখাতে অর্থনৈতিকভাবে দেশ লাভবান হবে। হালদ‍ার সঙ্গে দেশের বিভিন্ন স্থানে যোগাযোগ ব্যবস্থা বাড়বে।

অন্যদিকে রাউজান দর্শনীয় স্থান। মাস্টারদা সূর্যসেনের বাস্তুভিটা ও স্মৃতিসৌধ, মহামুনি মন্দির প্রাঙ্গণ, জগৎপুর আশ্রম, মহাকবি নবীনচন্দ্র সেনের বাস্তুভিটা ও স্মৃতিসৌধ রয়েছে এখানে। এ উপজেলার জনসংখ্যা ৩ লাখ ২৫ হাজার ৩৮৯ জন। এখানে মারমা, ত্রিপুরা, মগ প্রভৃতি আদিবাসী জনগোষ্ঠীর বসবাস রয়েছে।

মুক্তিযুদ্ধে রাউজানে ব্যাপক লুটপাট ও অগ্নিসংযোগ চালায় এবং ৪৮ জন নিরীহ লোককে হত্যা করা হয়। স্মৃতি বিজড়িত অনেক নিদর্শন রয়েছে রাউজানে। অর্থনৈতিক ও ঐতিহাসিক দিক বিবেচনা করে রাউজানে নতুন রেলপথ নির্মাণ করতে যাচ্ছে সরকার।

অন্যদিকে চট্টগ্রাম থেকে শিক্ষার্থীদের সহজে চুয়েটে যেতে রেলপথের উপর গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে।

এ বিষয়ে রেলপথ মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (পরিকল্পনা ও উন্নয়ন) শশী কুমার সিংহ  বলেন, প্রকল্পটির ফিজিবিলিটি স্টাডির কাজ গ্রহণের প্রস্তুতি চলছে। এর পরেই মূল প্রকল্পের কাজ শুরু করতে পারবো। প্রকল্পের ডিপিপিও প্রণয়ন করা হয়েছে। সামাজিক, অর্থনৈতিক ও ঐতিহাসিক কথা বিবেচনা করে চট্টগ্রাম মহানগর থেকে চুয়েট, রাউজান ও হালদায় রেললাইন নিয়ে যাওয়া হবে।

x

Check Also

আরো আট নারী ও শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগ

সাভারের আশুলিয়ায় বন্ধুদের সঙ্গে বেড়াতে গিয়ে স্থানীয় একটি কিশোর গ্যাংয়ের সদস্যরা দুই ...