পাকিস্তানের আন্তঃবাহিনী জনসংযোগ বিভাগ এক সংবাদ বিবরণীতে দাবি করেছে, পাকিস্তানি বাহিনীর গুলি ও গোলায় ভারতের পাঁচ সেনা নিহত হয়েছেন।

এতে আরো বলা হয়েছে, জম্মু ও কাশ্মীরে নিয়ন্ত্রণরেখায় ভারতীয় সেনাবাহিনীর গোলায় পাকিস্তানের দুই বেসামরিক নাগরিক ও দুই সেনা নিহত হয়েছেন। এ ছাড়া আহত হয়েছেন ১৪ পাকিস্তানি। অন্যান্য স্থানে গোলাগুলিতে আরো কয়েকজন আহত হয়েছেন।

পাকিস্তানের দাবি, বুধবার নিয়ন্ত্রণরেখায় ভারতীয় বাহিনীর গোলা হামলার জবাবে পাকিস্তানি বাহিনী হামলা চালায়। এতে ভারতের কয়েকটি সীমান্ত পোস্ট ধ্বংস হয় এবং তাদের পাঁচ সেনা নিহত হন। পাকিস্তানের কড়া জবাবে স্তব্ধ হয়ে যায় ভারতীয় সেনাদের বন্দুক।

পাকিস্তানের সেনাবাহিনীর গণমাধ্যম শাখার মহাপরিচালককে উদ্ধৃত করে সংবাদ বিবরণীতে বলা হয়েছে, বিনা উসকানিতে যুদ্ধবিরতি লঙ্ঘন করলে সব সময়ই কঠোর, আগ্রাসী ও সমুচিত জবাব দেওয়া হবে।

পাকিস্তান পুলিশের উপ-মহাপরিদর্শক (ডিআইজি) রশিদ নাইম খানের তথ্যানুসারে, হতাহতের সংখ্যার বিচারে বুধবার ছিল কোটলি জেলার নাকিয়াল সেক্টরের জন্য সবচেয়ে খারাপ দিন।

তিনি দাবি করেছেন, ভারতের নির্বিচার গুলি ও গোলা হামলায় নাকিয়াল সেক্টরে একজন নিহত ও ১০ জন আহত হয়েছেন। হ্যাভেলি জেলার নেজাপির সেক্টরে একজন নিহত ও দুজন আহত হয়েছেন। তবে ভিম্বার জেলার সামাহনি সেক্টর অপেক্ষাকৃত শান্ত ছিল। সেখানে একজন আহত হয়েছেন।

একদিন আগে পাকিস্তানের ভিম্বার ও কোটলি জেলায় ভারতীয় সেনাদের হামলায় দুজন নিহত ও ১২ জন আহত হন। মঙ্গলবার চারজন এবং সোমবার ছয়জন আহত হন।

রোববার ভারতীয় বাহিনীর হামলায় পাকিস্তান সেনাবাহিনীর একটি গাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত হয় এবং এ ঘটনায় চার পাকিস্তানি সেনা নিহত হন। সেনা ও বেসামরিক লোক নিহত হওয়ায় ভারত সরকারের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানিয়েছে পাকিস্তান।

সাব্বির// এসএমএইচ // ২০ জুলাই ২০১৭