Home / জেলা সংবাদ / মনপুরায় ট্রলারসহ ১৫ মাঝি অপহৃত

মনপুরায় ট্রলারসহ ১৫ মাঝি অপহৃত

নিজস্ব প্রতিবেদক :

ভোলার মনপুরার মেঘনায় নদী থেকে ট্রলারসহ ১৫ মাঝিকে অপহরণ করেছে জলদস্যু সম্রাট আলাউদ্দিন বাহিনী। অপহূত মাঝিদের ও ট্রলারটি ছাড়িয়ে আনতে জলদস্যু বাহিনীর প্রধান জনপ্রতি ৫০ হাজার টাকা মুক্তিপণ দারি করেছে বলে আড়তদার ও পরিবার সূত্রে জানা গেছে। শনিবার দিবাগত রাত দুইটার দিবে এই ঘটনা ঘটে।

অপহৃতদের মধ্যে ১১ জনের নাম জানা গেছে। তারা হলেন- সুজন মাঝি, জামাল মাঝি, আলাউদ্দিন মাঝি, শাহআলম মাঝি, লোকমান মাঝি, জাফর মাঝি, সেলিম মাঝি, ইলিয়াছ মাঝি, জাহাঙ্গীর মাঝি, শাহাবউদ্দিন মাঝি ও আবদুল হাই।

জলদস্যুদের ধরতে হাতিয়া জোনের কোস্টগার্ড অভিযান অব্যাহত রেখেছেন বলে কোস্টগার্ড সূত্রে জানা গেছে। রবিবার সকাল ১০টা পর্যন্ত এখনও অপহৃত মাঝিদের ও ট্রলারটি উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি।

রামনেওয়াজ ঘাটের মত্স্য আড়ত ও স্থানীয় আহত জেলে সূত্রে জানা যায়, প্রতিদিনকার ন্যায় মাঝিরা বদনার চর সংলগ্ন মেঘনা নদীতে ইলিশ মাছ ধরার জন্য জাল ফেলেন। এসময় আগে থেকে ওৎ পেতে থাকা হাতিয়ার জলদস্যু বাহিনীর প্রধান আলাউদ্দিন, কৃষ্ণ, রুবেল ও আরিফ বাহিনী জাগলার চর থেকে ট্রলার দিয়ে দেশীয় অস্ত্র ও ছড়াগুলি ছুড়ে জেলেদের চারিদিক থেকে ঘিরে ফেলে। পরে জলদস্যুরা তাদের জিম্মি করে প্রতি ট্রলার ১৫ জন মাঝিকে হাতিয়ার দিকে গভীর জঙ্গলে নিয়ে যায়।

আহত জেলে লোকমান জানান, জলদস্যুরা তাদের নৌকায় উঠে মারধর করে ১৬ হালি মাছ নিয়ে গেছে। অপহৃত সকল মাঝি মনপুরার বলে জানিয়েছেন তিনি।

স্থানীয় আড়তদার লিটন হাওলাদার ও টিটু ভূইয়া জানান, অপহূতদের মুক্তিতে জনপ্রতি ৫০ হাজার টাকা দাবি করে জলদস্যুরা।

হাতিয়া জোনের কোস্টগার্ড প্রধান লেঃ কমান্ডার ওমর ফারুক জানান, খবর পেয়ে অপহৃত মাঝি ও ট্রলারটি উদ্ধারে মেঘনায় অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

মনপুরা থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ শাহীন খান বলেন, বিষয়টি শুনেছি। তবে কতজন মাঝিকে অপহরণ করা হয়েছেতার সঠিক তথ্য এখনো পাইনি।

আরডি/ ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৬

x

Check Also

আরো আট নারী ও শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগ

সাভারের আশুলিয়ায় বন্ধুদের সঙ্গে বেড়াতে গিয়ে স্থানীয় একটি কিশোর গ্যাংয়ের সদস্যরা দুই ...