Home / আন্তর্জাতিক / যুক্তরাষ্ট্রে ইমাম হত্যা, আদালতে দোষী সাব্যস্ত মোরেল

যুক্তরাষ্ট্রে ইমাম হত্যা, আদালতে দোষী সাব্যস্ত মোরেল

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:

ওজোন পার্কে ইমাম এবং তার সহযোগী হত্যার অভিযোগে অস্কার মোরেলকেই আদালত দোষী সাব্যস্ত করেছে। সোমবার কুইন্সের আদালত তাকে দোষী সাব্যস্ত করে রায় দিয়েছে বলে জানিয়েছে নিউইয়র্ক টাইমস ও ডেইলি নিউজ।

দোষী সাব্যস্ত করার সময় আদালতে উপস্থিত ছিল না ঘাতক অস্কার মোরেল। তবে কেন মোরেল ইমাম এবং তার সহযোগীকে হত্যা করেছে তার সঠিক উত্তর খুঁজে পাওয়া যায়নি এখনও।

গত ১৩ আগষ্ট দিনে দুপুরে এই হত্যাকাণ্ড সংঘটিত হওয়ার পর, ক্ষোভে ফুসে উঠে স্থানীয় বাংলাদেশিসহ মুসলিম সম্প্রদায়। এই হত্যাকাণ্ডের দ্রুত তদন্ত আর বিচারের আশ্বাস দিয়েছিলেন নিউইয়র্ক সিটি মেয়র বিল ডি ব্লাজিও। একইসঙ্গে মুসল্লিদের নিরাপত্তা বাড়ানোর কথা বলেছিলেন তিনি। ঐ ঘটনার পর আটক ল্যাটিনো নাগরিক ৩৫ বছর বয়সী অস্কার মোরেলকে পুলিশ ’ফাস্ট ডিগ্রি মার্ডার’ কেসে অভিযুক্ত করে তার রিমান্ড চেয়েছিল কুইন্সের অপরাধ আদালতে। হত্যাকাণ্ডের ৯ দিনের মাথায় আদালত তাকেই উপযুক্ত তথ্য প্রমাণের ভিত্তিতে দোষী সাব্যস্ত করল।

ওজোন পার্কে ইমাম আলাউদ্দিন আকুঞ্জি এবং তার সহযোগী তারা মিয়াকে গুলি করার পর আধা মাইল দূরত্বে একটি বাইসাইকেল চালককে ধাক্কা দিয়ে ফেলে দেয়। পরে সেই বাইসাইকেল চালক গাড়ির নম্বর পুলিশকে দেয়। পরদিন ঐ গাড়ির চালক হিসেবে অস্কার মোরেলকে আটক করে পুলিশ। পরে আল ফোরকান মসজিদের ইমাম হত্যাকাণ্ডে তার সম্পৃক্ততা পায় পুলিশ।

প্রথম দিন আদালতের জবানবন্দিতে ২ জন হত্যার কথা অস্বীকার করে অস্কার মোরেল। তবে পুলিশ তার কাছ থেকে জব্দকৃত পিস্তল আর অন্যান্য প্রমাণাদি আদালতে হাজির করে মোরেলকে সরাসরি হত্যাকারী হিসেবে চার্জশিট দেয়।

অবশ্য তার অ্যাটর্নি জানিয়েছেন, মোরেল এই হত্যাকাণ্ডের সাথে জড়িত নয়, এমনকি যে রিভলভার পাওয়া গেছে সেটিও তার নয় বলে জানিয়েছে মোরেল।

এদিকে, ওজোনপার্কে ইমামসহ ২ জন বাংলাদেশি হত্যার পর প্রতিবেশী আর জাতি-গোত্রে যে অবিশ্বাস আর আস্থাহীনতার সৃষ্টি হয়েছে তা কাটিয়ে উঠতে উদ্যোগ নিয়েছে বাংলাদেশি সম্প্রদায়। আর তাতে, একসঙ্গে চলার নীতি নিয়ে অংশগ্রহণ করেছেন ব্রুকলিনের সর্বস্থরের জাতি-গোত্র আর রাজনীতি মতাদর্শের নেতৃবৃন্দ। রোববার, ব্রুকলিনের ম্যাকডোনাল্ড এভিনিউয়ে অনুষ্ঠিত ‘শান্তি আর ঐক্যের সমাবেশে’, মুসলিমদের নিরাপত্তা চাওয়া হলেও বাড়তি নিরাপত্তার নামে সামাজিক ঐক্য যেন বিনষ্ট না হয় সেদিকে খেয়াল রাখার দাবি তোলা হয়। আর সন্দেহভাজন একজন হত্যাকারী ল্যাটিনো কমিউনিটির হ্ওয়ায়, স্থানীয় ল্যাটিনো কমিউনিটির সঙ্গেও যেন বাংলাদেশিদের দূরত্ব তৈরী না হয় সেদিকে নজর দেওয়ার কথা বলেন উদ্যোক্তারা। এখানে, ৫ বছরের একটি শিশু যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার কাছে পাঠানো একটি চিঠির অনুলিপি পাঠ করে শোনানো হয়। চিঠি পড়ে শোনান রিয়াসাত নামের এক ব্যক্তি।

‘ওয়াক উইথ আস’ বা আমাদের সাথে চলো, নামক একটি স্লোগানের ডাকে সাড়া দিয়ে এখানে আসেন, মসজিদের ইমাম, গীর্জার ধর্মগুরু, স্থানীয় কাউন্সিলম্যান, ডেমোক্রেটিক পার্টির ডিস্ট্রিক নেতা, আর ব্রুকলিন বরো প্রেসিডেন্ট। তারা একে অপরের পাশে এসে দাঁড়ানোর অঙ্গীকার করেন নিজেদের বক্তৃতায়। এই শান্তি আর একতা সমাবেশের মঞ্চ থেকে উদ্যোক্তাদের তরফ থেকে নিউইয়র্কে মুসলিম বিদ্বেষ বন্ধ করার আহবান জানানো হয়।

ইমাম হত্যাকারী সন্দেহভাজন একজন হিসপানিক গোত্রের বাসিন্দা বলেন, বাংলাদেশিদের মনে যেন ল্যাটিনো বিরোধ না জন্মে সে বিষয়ে বলা হয় এখানে। আর সেইসঙ্গে পুলিশি নিরাপত্তার চাইতে, ইসলামোফোবিয়া দূর করতে সামাজিক সংস্কারের দাবি তোলেন তারা।

‘ওয়াক উইথ আস’, বা আমাদের সাথে চলো শিরোনামের এই শান্তি আর ঐক্যের ডাকে ব্রুকলিনে হাজির হন শত শত মানুষ। কোমলমতি শিশুদের পাশাপাশি বিভিন্ন গোত্রের বাসিন্দারা একসাথে উপস্থিত থেকে ভবিষ্যতে আর যেন কোনো গোত্রের বাসিন্দাদের এভাবে নিহত না হতে হয় তার জন্য প্রতিবাদ করেন তারা। নিহত ইমাম এবং তার সহযোগীর মৃত্যুতে সকল ধর্মের, গোত্রের মানুষ একযোগে উপস্থিত থেকে প্রতিবাদ জানিয়েছেন ‘শান্তি এবং ঐক্যের সমাবেশ’ থেকে। উদ্যোক্তারা জানান, কমিউনিটিতে আস্থা আর ঐক্য ফেরানোর জন্য এমন আরো অনুষ্ঠানের আয়োজন করবেন তারা ভবিষ্যতে।

আরডি/ এসএমএইচ // ২৩ আগস্ট ২০১৬

x

Check Also

আরো আট নারী ও শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগ

সাভারের আশুলিয়ায় বন্ধুদের সঙ্গে বেড়াতে গিয়ে স্থানীয় একটি কিশোর গ্যাংয়ের সদস্যরা দুই ...