Home / টপ নিউজ / স্বাধীনতা অর্জনে সর্বোচ্চ ত্যাগ স্বীকারের দৃষ্টান্ত প্রীতিলতা

স্বাধীনতা অর্জনে সর্বোচ্চ ত্যাগ স্বীকারের দৃষ্টান্ত প্রীতিলতা

নিজস্ব প্রতিবেদক :

স্বাধীনতার জন্য আত্মদানের ইতিহাস রচনা করে সর্বোচ্চ ত্যাগের দৃষ্টান্ত স্থাপন করেন প্রীতিলতা ওয়াদ্দেদার। মাত্র ২১ বছর বয়সে তিনি ইতিহাসে অমর হয়ে আছেন। ব্রিটিশবিরোধী আন্দোলনের বীরকন্যা প্রীতিলতা ওয়াদ্দেদারের ৮৪তম আত্মাহুতি দিবস শনিবার। ১৯৩২ সালের ২৪ সেপ্টেম্বর রাতে বিপ্লবীদের একটি দল চট্টগ্রামের পাহাড়তলীর ইউরোপিয়ান ক্লাব আক্রমণের প্রাক্কালে গুলিবিদ্ধ প্রীতিলতা ধরা পড়ার আশঙ্কায় সঙ্গে থাকা পটাশিয়াম সায়ানাইড বিষ খেয়ে আত্মহত্যা করেন।

১৯১১ সালের ৫ মে চট্টগ্রামের পাহাড়বেষ্টিত ভূখন্ড কর্ণফুলী নদীর উত্তাল স্রোত এসে যেখানে বঙ্গোপসাগরে মিশে গেছে সেই পটিয়ার ধলঘাট গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন অগ্নিকন্যা প্রীতিলতা। কন্যাসন্তান, তার উপর গায়ের রঙ কালো। সে সময়ে এমনিতেই কন্যাসন্তানের জন্ম খুব স্বাভাবিকভাবে নিতে পারতেন না অনেকেই। প্রীতিলতার বাবা জগবন্ধু ওয়াদ্দেদার ছিলেন মিউনিসিপাল অফিসের প্রধান কেরানি। ৫ মে যখন প্রীতিলতার জন্ম হয় তার বাবা খুশি হতে পারেননি। তার উপর প্রীতিলতার গায়ের রঙ ছিল কালো। মায়ের নাম ছিল প্রতিভা দেবী। পরিবারের ৬ ভাই বোনের মধ্যে প্রীতিলতা ছিলেন দ্বিতীয়। ছোটবেলা থেকে অন্তর্মুখী, লাজুক ও মুখ চোরা ছিলেন। মৃত্যুর পূর্ব পর্যন্ত তিনি নম্রতা, বদান্যতা, রক্ষণশীলতা লালন করেছিলেন। প্রীতিলতার ডাকনাম ছিল রানী। তার পড়াশোনার হাতেখড়ি মা-বাবার কাছে। তার স্মৃতিশক্তি ছিল অসাধারণ। জগবন্ধু ওয়াদ্দেদার মেয়েকে চট্টগ্রামের ড. খাস্তগীর উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ে সরাসরি তৃতীয় শ্রেণিতে ভর্তি করান। অষ্টম শ্রেণিতে বৃত্তি পান তিনি। ওই স্কুল থেকে ১৯১৭ সালে প্রথম বিভাগে ম্যাট্রিক পাস করেন প্রীতিলতা। তারপর ভর্তি হন ঢাকার ইডেন কলেজে। কলেজে পড়া অবস্থায় লীনা নাগের সঙ্গে তার যোগাযোগ হয়। লীনা নাগ ওই সময় ব্রিটিশবিরোধী বিপ্লবী সংগঠন দীপালি সংঘের নেতৃত্বে ছিলেন। শিক্ষা জীবনে প্রীতিলতা সফলতা অর্জন করেন। ১৯৩০ সালে সবার মধ্যে পঞ্চম ও মেয়েদের মধ্যে প্রথম স্থান অধিকার করে আইএ পাস করেন।

প্রীতিলতা ভারত উপমহাদেশের ব্রিটিশবিরোধী স্বাধীনতা আন্দোলনের প্রথম শহীদ নারী বিপ্লবী। বিএ পাস করে তিনি চট্টগ্রামের নন্দন কানন অর্পণাচরন ইংরেজি বালিকা বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষিকা হিসেবে যোগ দেন। ইডেন কলেজে পড়ার সময় বিপ্লবী সংগঠন ‘দীপালি সংঘ’ ও বেথুন কলেজে থাকতে ‘ছাত্রী সংঘের’ সক্রিয় কর্মী হলেও মূলধারার রাজনীতিতে যুক্ত হন তিনি স্কুলের শিক্ষকতায় যোগদানের পর। তবে প্রীতিলতা যখন চট্টগ্রামের ড. খাস্তগীর স্কুলের অষ্টম শ্রেণির ছাত্রী তখন একদিন দেখেন যে মাস্টারদা সূর্যসেন ও আম্বিকা চক্রবর্তীকে রেলওয়ের টাকা ডাকাতির অপরাধে মারতে মারতে নিয়ে যাচ্ছে পুলিশ।

১৯৩০ সালের ১৮ এপ্রিল বিপ্লবী নেতা মাস্টারদা সূর্যসেনের নেতৃত্বে চট্টগ্রামে অস্ত্র লুট, রেললাইন উপড়ে ফেলা, টেলিগ্রাফ-টেলিফোন বিকল করে দেওয়াসহ ব্যাপক আক্রমণ হয়। এ আক্রমণ চট্টগ্রাম যুব বিদ্রোহ নামে পরিচিতি পায়। এ আন্দোলন সারাদেশের ছাত্রসমাজকে উদ্দীপ্ত করে। চাঁদপুরে হামলার ঘটনায় বিপ্লবী রামকৃষ্ণ বিশ্বাসের ফাঁসির আদেশ হয়। এবং তিনি আলীপুর জেলে বন্দি হন। প্রীতিলতা রামকৃষ্ণের বোন পরিচয় দিয়ে তার সঙ্গে দেখা করতেন। রামকৃষ্ণের প্রেরণায় প্রীতিলতা বিপ্লবী কাজে আরো বেশি সম্পৃক্ত হয়ে পড়েন। ১৯৩১ সালে ৪ আগস্ট রামকৃষ্ণের ফাঁসি হওয়ার পর প্রীতিলতা আরো বিদ্রোহী হয়ে ওঠেন। ওই সময়ের আরেক বিপ্লবী কন্যা কল্পনা দত্তের সঙ্গে পরিচয় হয় প্রীতিলতার। বিপ্লবী কল্পনা দত্তের মাধ্যমে মাস্টারদার সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করেন প্রীতিলতা। ১৯৩২ সালের মে মাসে প্রীতিলতার দেখা হয় মাস্টারদা ও বিপ্লবী নির্মল সেনের সঙ্গে। তার কাছ থেকে অস্ত্র প্রশিক্ষণ লাভ করেন। জুন মাসে বিপ্লবীদের শক্ত আস্তানা প্রীতিলতার জন্মস্থান ধলঘাটে সাবিত্রী দেবীর বাড়িতে মাস্টারদা তার সহযোদ্ধাদের সঙ্গে গোপন বৈঠক করার সময় ব্রিটিশ সৈন্যরা তাদের ঘিরে ফেলে। বিপ্লবীরা প্রতিরোধ গড়ে তোলেন, যুদ্ধে প্রাণ দেন নির্মল সেন ও অপূর্ব সেন। অন্যদিকে ব্রিটিশ সেনা কর্মকর্তা ক্যাপ্টেন ক্যামেরুন নিহত হন। এ ঘটনার পর পুলিশ সাবিত্রী দেবীর বাড়ি পুড়ে দেয়। মাস্টারদা প্রীতিলতাকে বাড়ি ফিরে স্কুলে যোগ দিতে বলেন। কিন্তু প্রীতিলতার ওপর পুলিশের নজরদারি বেড়ে যায়। এই কারণে জুলাই মাসে প্রীতিলতাকে আত্মগোপনে যাওয়ার নির্দেশ দেন মাস্টারদা।

এপ্রিলের পর আবার ক্লাব আক্রমণের পরিকল্পনা করা হয়। ওই বছর ১০ আগস্ট আক্রমণের দিন ধার্য করা হয়। সেপ্টেম্বর মাসে নারী বিপ্লবীদের নেতৃত্বে আক্রমণ হওয়ার কথা হয়। আর নেতৃত্বে থাকেন কল্পনা দত্ত। কিন্তু আক্রমণের আগেই পুলিশের হাতে ধরা পড়ে কল্পনা দত্ত। তাই নেতৃত্বে দেওয়া হয় প্রীতিলতাকে। ২৪ সেপ্টেম্বর রাতে ইউরোপিয়ান ক্লাব আক্রমণে সফল হন বিপ্লবীরা। প্রীতিলতা সেদিন পুরুষের বেশে আক্রমণে যোগ দেন। জয়ী হয়ে নিরাপদ আশ্রয়ে ফেরার পথে গুলিবিদ্ধ হন প্রীতিলতা। এ অবস্থায় ধরা পড়ার আগেই সঙ্গে থাকা সায়ানাইড খেয়ে আত্মাহুতি দেন তিনি। বিপ্লবী আন্দোলনের পাশাপাশি নারীদের প্রতি বৈষম্যের বিরুদ্ধেও সোচ্চার ছিলেন প্রীতিলতা, শেষ মুহূর্তেও তিনি বলেছিলেন ‘নারীরা আজ কঠোর সংকল্প নিয়েছে যে আমার দেশের ভগিনীরা আজ নিজেকে দুর্বল মনে করিবেন না। সশস্ত্র ভারতীয় নারী সহস্র বিপদ ও বাধাকে চূর্ণ করিয়া এই বিদ্রোহ ও সশস্ত্র মুক্তি আন্দোলনে যোগদান করিবেন এবং তাহার জন্য নিজেকে তৈয়ার করিবেন এই আশা লইয়াই আমি আজ আত্মদানে অগ্রসর হইলাম।’

আরডি/ ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৬

x

Check Also

আরো আট নারী ও শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগ

সাভারের আশুলিয়ায় বন্ধুদের সঙ্গে বেড়াতে গিয়ে স্থানীয় একটি কিশোর গ্যাংয়ের সদস্যরা দুই ...